বৃহস্পতিবার   ০৪ মার্চ ২০২১   ফাল্গুন ১৯ ১৪২৭   ২০ রজব ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
১২৫

উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কড়াকড়ি

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০২১  

উখিয়ায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ তেমন একটা পরিলক্ষিত হচ্ছে না। ধীরে ধীরে করোনার কথা ভুলতে বসেছেন এখানকার মানুষেরা। মাস্ক ব্যবহারেও অনীহা দেখা দিয়েছে। এরপরও সরকারি সেবা মূলক প্রতিষ্ঠানে বিশেষ করে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কড়াকড়ি আরোপ করতে দেখা গেছে। বার বার বলার পরও যারা মাস্ক পরতে অনীহা দেখিয়ে আসছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদের কঠিন সাজা দেওয়া হবে বলে ইতিমধ্যে হুঁশিয়ার করেছে সরকার। করোনা সংক্রমণ না বাড়লেও স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর সিদ্ধান্তকে যৌক্তিক বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আফিয়া জাহান রশনী বলেন, মানুষকে সচেতন করতে হবে, পাশাপাশি মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মানাতে বাধ্য করতে হবে। কারণ করোনা ছাড়াও মাস্ক ব্যবহার করলে ধুলো-বালিসহ বায়ুবাহিত রোগ থেকে নিজেকে রক্ষা করা যায়। তাই মাস্ক ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হতে হবে। গেল মার্চে দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্তের পর প্রাণঘাতী ভাইরাসটিতে আক্রান্তের সংখ্যা পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলেছে। উখিয়াও তার ব্যতিক্রম নয়। করোনায় উখিয়াতে অনেকে মারা গেছেন। এখন আবার করোনা সংক্রমণের রোগীর সংখ্যা একেবারে কমে যাওয়ার ফলে অর্থনীতি চাঙ্গা ভাব দেখা দিয়েছে।

প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির নেতা সাংবাদিক নুর মোহাম্মদ সিকদার বলেন, মানবতার শহর উখিয়া। এখানে লাখ লাখ মজলুম রোহিঙ্গা বসবাস করছে। তাদের ফরিয়াদ এবং এখানকার ধর্মভীরু মানুষের দোয়ায় উখিয়ার মানুষকে আল্লাহ অনেক ভাল রেখেছেন। পাকিস্তান তো পারেনি, ভারত পারছে না। রোজ রোজ সংক্রমণ বাড়ছে, কাজেই এ বিষয়ে সরকারের প্রস্তুতি আছে, প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে বিষয়টি মনিটরিং করছেন। আমার মতে মানুষের চলা ফেরায় মাস্ক ব্যবহারটা একেবারেই বাধ্যতামূলক করা দরকার।

এদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি রোধে জানুয়ারি-মার্চ /২০২১ প্রান্তিকে জনসচেতনতামূলক সড়ক প্রচার করছে ইউনিসেফ বাংলাদেশ ও কক্সবাজার জেলা তথ্য অফিস।

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর