বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১   মাঘ ১৫ ১৪২৭   ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
১৫৪

গ্যাস সংকট থেকে মুক্তি পাচ্ছে রাজধানীবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৮ নভেম্বর ২০১৮  

দেশের জ্বালানি সংকট নিরসন ছিল সময়ের দাবি। বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারও বিষয়টি নিয়ে অগ্রসর চিন্তা-ভাবনার পরিচয় দিয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে প্রাকৃতিক গ্যাস সংকট আরো অধিক তীব্র হয়ে উঠার আগেই কক্সবাজারের মহেশখালীতে ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের কাজ সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে। বহুল প্রতীক্ষিত আমদানীকৃত তরলায়িত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আজ বুধবার ঢাকায় পৌঁছবে। এতে ঢাকায় থাকছে না আর গ্যাস সংকট। 

কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে এলএনজি সরবরাহের জন্য সঞ্চালন লাইন স্থাপনের কাজ শেষ হয়েছে। গত সোমবার এই সঞ্চালন লাইনের প্রি-কমিশনিং কাজ শেষ হওয়ার পর গতকাল মঙ্গলবার দুপুর থেকে পাইপলাইনে এলএনজি সরবরাহ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

প্রথম দফায় ঢাকায় দৈনিক ২০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এ ছাড়া চট্টগ্রামের সাশ্রয়কৃত প্রাকৃতিক গ্যাসও ঢাকায় সরবরাহ করা হবে। এতে ঢাকায় বিরাজমান গ্যাস সংকট অনেকটা দূর হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এ প্রসঙ্গে গ্যাস ট্রান্সমিশন কম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘নবনির্মিত পাইপলাইনের প্রি-কমিশনিংয়ের কাজ শেষ হওয়ায় জাতীয় সঞ্চালন লাইনে এখন এলএনজি সরবরাহ শুরু হয়েছে। আশা করছি, বুধবার জাতীয় সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে এলএনজি ঢাকায় পৌঁছবে।’

পেট্রোবাংলার কর্মকর্তারা জানান, জাতীয় সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে কাতার থেকে আমদানীকৃত এলএনজি সরবরাহের জন্য মহেশখালী-আনোয়ারা ও আনোয়ারা-ফৌজদারহাট—এ দুই ভাগে মোট ১২১ কিলোমিটারের দুটি পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প নিয়েছিল জ্বালানি বিভাগ। এর মধ্যে ৩০ সেন্টিমিটার ব্যাসের ৯১ কিলোমিটার দীর্ঘ মহেশখালী-আনোয়ারা সঞ্চালন লাইন নির্মাণের কাজ এ বছরের মাঝামাঝি সময়ে শেষ হয়। এ লাইনের মাধ্যমে বর্তমানে চট্টগ্রামে ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ হচ্ছে।

অন্যদিকে ৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ ৪২ সেন্টিমিটার ব্যাসের আনোয়ারা-ফৌজদারহাট সঞ্চালন লাইনটির নির্মাণকাজ সম্প্রতি শেষ হয়েছে। এ পাইপলাইন দিয়ে ঢাকায় সরবরাহ করা হবে আমদানি করা বাকি ২০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস। এসব গ্যাস কক্সবাজারের মহেশখালী দ্বীপের এলএনজি টার্মিনাল থেকে সরাসরি সরবরাহ করা হবে।

কর্মকর্তারা আরো জানান, এখন দৈনিক ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা যাবে। পরে এলএনজি আমদানি বাড়লে সরবরাহের পরিমাণও বাড়ানো সম্ভব হবে।

জ্বালানি সংকটে দেশের শিল্পায়ন ও বিনিয়োগে স্থবিরতা দূর করতে ২০১০ সালে সরকার তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি আমদানির নীতিগত সিদ্ধান্ত নিলেও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ার ধীরগতিসহ নানা জটিলতা পেরিয়ে আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে সরকারের ফার্স্ট ট্র্যাক এই প্রকল্পটি।

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর