বুধবার   ২৮ অক্টোবর ২০২০   কার্তিক ১৩ ১৪২৭   ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
১৪৬

দেশীয় সফটওয়্যার উন্নয়নে কাজ করতে চান দেলোয়ার

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০১৮  

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরেমশন সার্ভিসেস (বেসিস) বাংলাদেশের সফটওয়্যার এবং তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসমূহের একটি সংস্থা যা জাতীয়ভাবে সফটওয়্যার এবং তথ্যপ্রযুক্তির বিশ্ব বাজারে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে। এটি ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বেসিসের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য ছিল মাত্র ১৭।

বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা প্রায় এক হাজার। বাংলাদেশের সফটওয়্যার ও আইটি খাতকে আরো প্রসারিত করাই বেসিসের মূল লক্ষ্য এবং এই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই তাদের সকল কার্যক্রম পরিচালিত হয়। আগামী শনিবার (২৫ জুন) তিন বছর মেয়াদে সংগঠনের নির্বাচন হতে চলেছে। বর্তমানে জমে উঠেছে এ নির্বাচন।

দুটি প্যানেলে বিভক্ত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন প্রার্থীরা। বিশিষ্ট তথ্য-প্রযুক্তিবিদ মোস্তফা জব্বারের নেতৃত্বাধীন ডিজিটাল ব্রিগেড প্যানেল থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন তরুণ তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তা রেডিসন ডিজিটাল টেকনোলজি লিমিটেডের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন ফারুক। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসা ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডেও সক্রিয় তিনি। নিজ উদ্যোগে তিনি কুমিল্লার লাকসামে প্রতিষ্ঠা করেছেন আতাকরা স্কুল অ্যান্ড কলেজ। তার প্রতিষ্ঠিত কলেজের সাফল্যও উল্লেখ করার মতো।

দেলোয়ার হোসেন ফারুক বলেন, বেসিস তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সবচেয়ে সুপ্রতিষ্ঠিত সংগঠন। বেসিস নিয়ে তথ্যপ্রযুক্তি অঙ্গন সংশ্লিষ্টদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষেরও আগ্রহ তৈরি হয়েছে। বেসিস তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সরকারের সঙ্গে কাজ করছে। বেসিস হচ্ছে দেশীয় সফটওয়্যার, ই-কমার্স এবং তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক সেবা (আইটিএস) খাতের প্রতিনিধিত্বকারী একমাত্র সংগঠন। আর ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সফটওয়্যার, ই-কমার্স এবং আইটিএস খাতের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। এই খাতে বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার কোটি টাকার বাজার তৈরি হয়েছে। দেশে ভালো মানের সফটওয়্যার নির্মাতাদের যদি প্রমোট করা যায় তবে গার্মেন্টের পরেই বৈদেশিক মুদ্রা আহরণে অন্যতম খাত হতে পারে এটি। ১৬ কোটি মানুষ মানে ১৬ কোটি ভোক্তা। সুতরাং ই-কমার্সেও আমাদের দারুণ সম্ভাবনা রয়েছে। একইভাবে আইটিএস খাতের কথাও উল্লেখ করা যেতে পেরে। আরএই তিনটি সম্ভাবনাময় খাতের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন হচ্ছে বেসিস। ফলে এই শিল্পের উন্নয়নে কাজ করতে হলে বেসিসই হতে পারে কাঙ্খিত লক্ষ্য। এই লক্ষ্য পূরণেই আমি বেসিস নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি।

তিনি বলেন, আমি আশাবাদী ভালো কিছু করা সম্ভব। কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে ‘ভিশন ২০২১’ ঘোষণার পর আমরা দেখতে পাচ্ছি কত দ্রুত বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে আমাদের অগ্রগতি ঈর্ষণীয়। বাংলাদেশ টানা তিনবার জাতিসংঘের অঙ্গসংস্থা উইসিস অ্যাওয়ার্ড জিতেছে। এটি সম্ভব হয়েছে আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নির্দেশনায় তরুণ আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে। সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় বেসিস সহযোগী হিসেবে দারুণ ভূমিকা রাখছে। বিশেষ করে বেসিসের বর্তমান প্রেসিডেন্ট শামীম আহসানের কথা উল্লেখ না করলেই নয়। তার একান্ত প্রচেষ্টায় বেসিস আজ তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দেশের শীর্ষ সংগঠনে পরিণত হয়েছে। আমি এখানে আরো একজনের কথা বলতে চাই। তিনি তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তাফা জব্বার। তাদের কর্মযজ্ঞ দেখে আমি ভীষণ অনুপ্রাণিত হই। আমি প্রত্যাশা করি, বাংলাদেশকে বদলে দেয়া আইসিটি অঙ্গনের এই নেত্বত্বের সহযোগিতায় বেসিস নিয়ে আমার স্বপ্ন এবং লক্ষ্য ভালোভাবেই পূরণ করতে পারবো।

দেশীয় সফটওয়্যার, আইটিএস এবং ই-কমার্সের উন্নয়নে কাজ করতে চান এই তরুণ উদ্যোক্তা। তিনি বলেন, আসলে দেশের জন্য কিছু করতে চাই। দেশের স্বার্থে যেন নিজেকে কাজে লাগাতে পারি এ চেষ্টাটা সবসময় থাকে আমার। ইতিমধ্যে আমি কুমিল্লার লাকসামে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছি। আর যেহেতু এখন সামনের দিকে এগিয়ে যেতে তথ্যপ্রযুক্তি বড় হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। এখন বেসিসের মাধ্যমে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে কাজ করার সুযোগ পেলে আনন্দিত হবো। আশা করছি বেসিস সদস্য বন্ধুরা আমাকে সে সুযোগটি দেবেন।
 

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর