সোমবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০   আশ্বিন ৫ ১৪২৭   ০৩ সফর ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
২১৪

প্রশ্ন রইলো- এসপি মাসুদ কি আসলেই মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ?

প্রকাশিত: ৮ আগস্ট ২০২০  

বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জর দক্ষিণ ওলানিয়া ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের আবদুল কাদের হাওলাদার ও অজুফা খাতুনের ছেলে এবিএম মাসুদ হোসেন ছাত্র অবস্থা থেকেই রাজনৈতিক সুবিধা আদায়ের কোনো সুযোগ হাতছাড়া করেন নি। শিবিরের সাবেক সভাপতি রেজাউল করিমের মাধ্যমে চাকরি পান ইসলামী ব্যাংকে যেখানে তিনি ২০০১ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। উল্লেখ্য জামায়াতের কোনো প্রতিষ্ঠানে শিবির কর্মি ছাড়া অন্যদের কখনোই নিয়োগ দেয়া হয় না।

সুবিধাবাদী মাসুদের জামাতি লবিং-
জামায়াতের লবিংয়েই জোট সরকারের আমলে ২৪ তম বিসিএসে এএসপি হিসেবে যোগদান করেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর শ্বশুর আওয়ামী লীগ করে এই পরিচয়ে আওয়ামী লীগার বনে যাওয়ার চেষ্টা করলেও জামায়াত সংশ্লিষ্টতার চিহ্ন বহন করে গেছেন। 
জামায়াত শিবিরের প্রতি সহানুভূতিশীল আল-জাজিরা কতটা সরকার বিরোধী তা বলার অপেক্ষা রাখে না। কিন্তু সেই আল জাজিরায়ও এসপি মাসুদ সাক্ষাতকার দেন যা জামাতি কানেকশনেই সম্ভব। অবাক বিষয় হচ্ছে, পুলিশের এসপি হলেও র্যাযবের ক্রসফায়ার নিয়ে তিনি এপি, ভয়েস অব আমেরিকা, আরব নিউজ বা এ জাতীয় আন্তর্জাতিক মিডিয়ার নেতিবাচক প্রতিবেদনে বক্তব্য প্রদান করেন এবং এজন্য তাকে কোনো জবাবদিহিতার সম্মুখীনও হতে হয় না!  

কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের সমাবেশ করতে অর্থের যোগানদাতাদের একজন তিনি বলে কয়েকটি সূত্রে জানা যায়। বেসরকারি সংস্থা আদ্রা ও আল মারকাজুল ইসলামের সঙ্গে তার সুসম্পর্ক নিয়েও নানা গুঞ্জন রয়েছে।

আল জাজিরা যে রিপোর্টে সরকারের সমালোচনা করে, সেখানে জাজিরার প্রতিনিধিকে দেয়া মাসুদের বক্তব্যও থাকে এবং তাকে এজন্য জবাবদিহি করতে হয় না।

জামায়াত শিবির পুনর্বাসন কার্যক্রম-
কক্সবাজারে জামায়াত শিবিরের চিহ্নিত ক্যাডার ও নাশকতা মামলার আসামীদের মামলা থেকে রেহাই হয় পুলিশ সুপার মাসুদের বদান্যতায়। জামায়াত নেতার তথ্যে পুলিশ বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এমন কি মাদক অভিযানের নামে মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন বাঙ্গালীর বাড়িতে ভাঙচুর, লুটপাট তাণ্ডব চালিয়েছে বলেও জানা যায়।

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর