শুক্রবার   ০৭ আগস্ট ২০২০   শ্রাবণ ২৩ ১৪২৭   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
১১৭

রামুর দূর্গম ব্যাঙডেবা গ্রামে আবারো জেলা প্রশাসকের ত্রাণ সহায়তা

প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০২০  

রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের অতিদূর্গম ব্যাঙডেবা গ্রামের ৮৫ পরিবারকে এবার ৫ টন চাল দিয়েছেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।

বৃহষ্পতিবার (৯ জুলাই) দুপুরে ওই এলাকায় গিয়ে জেলা প্রশাসকের এসব ত্রাণ সহায়তা ব্যাংডেবা গ্রামের বাসিন্দাদের বিতরণ করেন রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা ও জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স। 

উল্লেখ্য করোনা পরিস্থিতি চলাকালে রামুর দূর্গম ব্যাঙডেবা গ্রামের বাসিন্দাদের খাদ্য সংকটের বিষয়টি জানার পর ত্রাণ ও ভ্রাম্যমান হাসপাতাল নিয়ে গত ১১মে ওই গ্রামে যান জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন। এ গ্রামের কোন জেলা প্রশাসকের এটাই প্রথম পা রাখা। এ সময় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান হাসপাতাল ব্যাঙডেবা গ্রামের বাসিন্দা চিকিৎসা সেবা প্রদান করে। এরআগে ২৩ এপ্রিল রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমাও এ গ্রামে গিয়ে এলাকার জনসাধারণকে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেন। 

জেলা প্রশাসকের ত্রাণ ও চিকিৎসা সেবা প্রদানের ২ মাস পর আবারো ৫ টন চাল বরাদ্ধ দেয়ায় জেলা প্রশাসকসহ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ওই গ্রামের বাসিন্দারা। বৃহষ্পতিবার জেলা প্রশাসকের এ বরাদ্ধের চাল ৮৫ পরিবারের প্রত্যেককে ২ বস্তা (৬০) কেজি করে বিতরণ করা হয়। 

ত্রাণ বিতরণকালে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা বলেন- চলমান করোনা পরিস্থিতিতে অন্যান্য এলাকার চাইতে দূর্গম ব্যাঙডেবা গ্রামের লোকজন কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। এজন্য জেলা প্রশাসক নিজে এখানে এসে সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা দিয়েছেন। এখন আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসক আবারো এ গ্রামের বাসিন্দাদের জন্য ৫ টন চাল পাঠিয়েছেন।

ইউএনও আরো বলেন, এ গ্রাম এখন প্রশাসনের সুনজরে রয়েছে। অচিরেই ব্যাঙডেবা-জোয়ারিয়ানালা পর্যন্ত এলজিইডির আওতায় ১০ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ কাজ শুরু হবে। এ সড়ক নির্মাণকাজ শেষ হলে ব্যাঙডেবা গ্রামবাসী আরো উন্নত জীবন-যাপনের সুযোগ পাবে। 

জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স বলেন- অতিদূর্গম গ্রাম ব্যাঙডেবা গ্রামে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন নিজে এসে চিকিৎসা ও ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন। এখন আবারো ৫ টন চাল এ গ্রামের ৮৫টি পরিবারের জন্য পাঠিয়েছেন। এছাড়াও ব্যাঙডেবা-জোয়ারিয়ানালা সড়ক নির্মাণ কাজ শুরুর প্রক্রিয়া চলছে। এজন্য তিনি জেলা প্রশাসক ও ইউএনও’র মাধ্যমে সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। 

ত্রাণ বিতরণকালে ঈদগড় ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভূট্টো, রামু উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মামুনুর রশিদ, রামু থানার সহকারি উপ-পরিদর্শক রাজিব বড়ুয়া, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের পরিষেদর মেম্বার জসিমুল ইসলাম, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ব্যবসায়ি টিপু সুলতান, মাস্টার মো. ইমরাম, মিনহাজুর রায়হান, ব্যাঙডেবা আহমদ কামাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছুরুত আলম, ব্যাঙডেবা গ্রামের হেডম্যান আলী আহমদ, ব্যাঙডেবা গ্রামের বাসিন্দা মনজুর আলম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। 

ব্যাঙডেবা গ্রামের বাসিন্দা হেডম্যান আলী আহমদ ও কৃষক মনজুর আলম জানিয়েছেন, ৭৫ বছর ধরে এ গ্রামে মানুষের বসবাস। এত দীর্ঘ সময়ে এবারই প্রথম তারা সরকারিভাবে ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছেন। এমনকি জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসারও এ প্রথম এ গ্রামে পদার্পন করেছেন। যা গ্রামবাসীর জন্য সৌভাগ্যের।

তিনি গ্রামের সকল পরিবারকে পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা দেয়ায় জেলা প্রশাসকের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। এছাড়া তারা ব্যাঙডেবা-জোয়ারিয়ানালা সড়কটির নির্মাণকাজ সহসা শুরু করে এলাকাবাসীর যাতাযাতে দীর্ঘদিনের দূর্ভোগ লাঘবের দাবি জানিয়েছেন। 

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর