রোববার   ১৭ জানুয়ারি ২০২১   মাঘ ৩ ১৪২৭   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
৫০

লালদীঘির পাড় মসজিদ উদ্বোধন করলেন কউক চেয়ারম্যান

প্রকাশিত: ৫ ডিসেম্বর ২০২০  

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) এর সৌন্দর্যবর্ধন ও উন্নয়ন কাজের আওতায় কক্সবাজার শহরের লালদীঘি পশ্চিম পাড়স্থ পূণ: নির্মিত জামে মসজিদ উদ্বোধন করেছেন কউক চেয়ারম্যান লে: কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ (এলডিএমসি-পিএসসি)।

শুক্রবার ৪ ডিসেম্বর পবিত্র জুমার নামাজ আদায়ের মাধ্যমে নব নির্মিত লালদীঘির পশ্চিম পাড় জামে মসজিদ উদ্বোধনের সময় সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সমাজ কমিটির সভাপতি ও সিনিয়র সাংবাদিক তোফায়েল আহমদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান, কউক এর প্রকল্প পরিচালক লে: কর্নেল আনোয়ার উল ইসলাম, কউক সচিব (উপ সচিব) আবু জাফর রাশেদ, কক্সবাজার পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ মাহবুবুর রহমান চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। লালদীঘির দক্ষিণ পশ্চিম পাড়ের কোনায় আগে থাকা জামে মসজিদটি এখন নব নির্মিত দালানে স্থানান্তর করা হয়েছে।

পরে একইদিন কউক কর্তৃক লালদীঘির পশ্চিম পাড়ে পূণ: নির্মিত বুট পালিশ মার্কেট আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন কউক চেয়ারম্যান লে: কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ (এলডিএমসি-পিএসসি)। পূণ: নির্মিত বুট পালিশ মার্কেটে ২৬ জন মুচিকে দোকান বরাদ্দ দেওয়া হয়।

কউক কর্তৃক লালদীঘির পশ্চিম পাড়ে নির্মিত একটি ভবনের নীচে বুট পালিশ মার্কেট এবং দোতলায় জামে মসজিদ। ১৭ কোটি ৫ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) শহরের লালদীঘি সৌন্দর্যবর্ধন ও উন্নয়ন কাজ করছে। একাজ ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয়ে ২০২০ সালের সালের জুনে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রকল্পের কাজ আগামী ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সমাপ্ত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর