শনিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২০   অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৭   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
৭৪

সাবেক এমপি কাজলের আতঙ্কে জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন

প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর ২০২০  

ইদগাহ সাংগঠনিক উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আলহাজ্ব মোহাম্মদ শফি’র অকাল মৃত্যুতে ককসবাজার জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ও মৃত্যু আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানা যায়।

ককসবাজার জেলা বিএনপি সবসময় কোন্দলে থাকে আধিপত্য নিয়ে। দল নিয়ন্ত্রন, প্রভাব বিস্তার ও পছন্দের মানুষকে দলে জায়গা করে দেওয়া ও দলের বিপ্লবীদের কে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া থেকে শুরু করে সব বিষয়ে নিয়ন্ত্রন করে যাচ্ছে সাবেক সাংসদ লুৎফুর রহমান কাজল।

গত ২৯ তারিখ বৃহস্পতিবার বুকের ব্যাথা নিয়ে সদর হাসপাতালে ভর্তি হন ইদগাহ সাংগঠনিক উপজেলা বি,এন,পির আহবায়ক আলহাজ্ব মোহাম্মদ শফি। ঐ দিন সন্ধার সময় তিনি হাসপাতালেই মারা যান। মারা যাওয়ার খবর ককসবাজার জেলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে দলীয় অনেক নেতা কর্মী মৃত্যু আতঙ্কগ্রস্হ হয়ে পড়েন।

এ. খালেকুজ্জ্বাম যখন ককসবাজার জেলা বি,এন,পির আহবায়ক ছিলেন তখন লুৎফুর রহমান কাজল জেলা যুবদলের সভাপতি। সেই থেকে তিনি একের পর এক ঘটনা জন্ম দিয়ে যাচ্ছেন। তৎকালিন উর্মি কমিউনিটি সেন্টারে এড. খালেকুজ্জ্বামানের দলীয় প্রোগ্রাম চলাকালিন সময়ে লুৎফুর রহমান কাজলের নিজস্ব ক্যাড়ার বাহিনী এড. খালেকুজ্জ্বামানকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি ছুঁড়েন এবং জেলা বি,এন,পির সম্মেলনে তাকে জেলা সাধারন সম্পাদক ঘোষনা না করাতে কাজলের লালিত পালিত গুন্ড়াবাহিনী তৎকালীন সাবেক যোগাযোগ প্রতি মন্ত্রী সালাহ উদ্দীনকেও মেরে স্টেজে রক্তাক্ত করেন।

নাম না বলার শর্তে এক ত্যাগী নেতা বলেনঃ সাবেক সংসদ লুৎফর রহমান কাজল আধিপত্য নিয়ন্ত্রনের জন্য ইদগাহ সাংগঠনিক উপজেলার নিবেদিত প্রাণ, দুঃসময়ের পরীক্ষিত নেতা ইদগাহ সাংগঠনিক উপজেলার সভাপতি মমতাজুল হক ও সাঃ সম্পাদক শওকত আলম শওকতকে ও.এস.ডি করেন সেই ধারাবাহিকতায় রোষানলের শিকার হন অধ্যাপক আবু তাহের, ফরিদ চেয়ারম্যান, শহিদুর রহমান শহিদ সহ আরো অনেকেই।

আলহাজ্ব শফির পরিবারের সাথে তার অপমৃত্যু নিয়ে কথা বলতে গেলে তারা এড়িয়ে যান। কথিত আছে, ২৮ সেপ্টম্বর ২০০১ ইংরেজীতে রামু বাইপাসে শেষ জনসভায় লক্ষ জনতার উপস্হিতিতে রাজনৈতিক মঞ্চে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়েন এড়ঃ খালেকুজ্জ্বামান। তার মৃত্যুতে সাবেক সংসদ লুৎফুর রহমানের হাত আছে বলে সর্বজনখ্যাত।

ইদগাহ সাংগঠনিক উপজেলার আহবায়ক আলহাজ্ব মোহাম্মদ শফির অকাল মৃত্যুর পর কে হবে নতুন আহবায়ক সেটিও এখন দেখার বিষয়। কারণঃ বর্তমান সময়ে ওয়ার্ড থেকে জেলা পর্যায়ের সকল নেতা কর্মী ও বাংলাদেশের সাবেক এম,পি, মন্ত্রী বিভিন্ন মামলায় জর্জরিত হলেও এই সাংসদ লুৎফুর রহমান কাজল সরকারী দলের উচ্চ মহলের সাথে দহরম মহরম সম্পর্ক থাকা তে তিনি বিগত দশ বছরের মধ্যে কোন মামলাতে পড়েননি যা বর্তমান কককসবাজার জেলা বি,এন,পির নেতাদের কাছে এক বড় প্রশ্নবিদ্ধ।

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর