শুক্রবার   ০২ অক্টোবর ২০২০   আশ্বিন ১৬ ১৪২৭   ১৩ সফর ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
শেখ হাসিনার জন্যই বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা পেয়েছে: তাপস

শেখ হাসিনার জন্যই বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা পেয়েছে: তাপস

শেখ হাসিনার জন্যই বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা পেয়েছে, সংবিধান সমুন্নত হয়েছে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ফিরে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

১২:১৬ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার

দেশরত্ন শেখ হাসিনা একজন মমতাময়ী মা, সাহসী ও দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়ক

দেশরত্ন শেখ হাসিনা একজন মমতাময়ী মা, সাহসী ও দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়ক

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডে শিকার হওয়ার পর অভিভাবকহীন বাংলাদেশের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা অনিবার্য হয়ে ওঠেন নানা কারণে। জেনারেল জিয়ার স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্বদানে এমনি একজন নেতার প্রয়োজন ছিল যিনি: প্রথমত, দলের ঐক্য এবং জেনারেল জিয়ার সামরিক স্বৈরাচারী সরকারের অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মনোবল ফেরাতে পারবেন; দ্বিতীয়ত, স্বৈরাচারী শাসকের বিরুদ্ধে নেতৃত্বদানে সাহসী ও কৌশলি হবেন; এবং তৃতীয়ত, নেতা-কর্মীসহ মানুষের আস্থা অর্জন করতে পারবেন। সামগ্রিক রাজনৈতিক বাস্তবতাকে বিবেচনায় নিয়ে ১৯৮১ সালের ১৪-১৬ ফ্রেবুয়ারি আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে জননেত্রী শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে দলের সভাপতি করা হয়। যে কোন বিচারে এটি ছিল একটি সুবিবেচনা প্রসূত সিদ্ধান্ত। কারণ দলের সংকটকালে একমাত্র বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসুরীর পক্ষেই দলকে সুসংগঠিত করে স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত করা সম্ভব।

১২:১৩ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার

রাষ্ট্রদ্রোহী জিয়া !

রাষ্ট্রদ্রোহী জিয়া !

বিএনপি’র  প্রতিষ্ঠাতা এবং সামরিক একনায়ক জিয়াউর রহমান একাধারে রাষ্ট্রপতি ও সেনাপ্রধানের দায়িত্ব পালন করে সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ি এটি রাষ্ট্রদ্রোহী অপরাধ। কারণ একজন প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী একজন সামরিক কর্মকর্তা কোন লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত হতে পারেন না। কোন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারেন না। কিন্তু জিয়াউর রহমান এই দুইটি অপরাধেই অপরাধী।

১১:৫০ এএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার

ফিরে দেখা: দেড় হাজার সেনা সদস্য হত্যার রক্তাক্ত অধ্যায়

ফিরে দেখা: দেড় হাজার সেনা সদস্য হত্যার রক্তাক্ত অধ্যায়

২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ২ অক্টোবর, ১৯৭৭। বাংলাদেশের ইতিহাসে কলঙ্কিত ও রক্তাক্ত  এক অধ্যায়। ৪৩ বছর আগে যে হত্যা ও রক্তপাতের ঘটনা ঘটিয়েছিলেন সামরিক এক নায়ক জিয়াউর রহমান; সেই স্মৃতি এখনও বয়ে বেড়াচ্ছেন অনেকে।

১১:৪১ এএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার

সংকটেও দূরদর্শী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সংকটেও দূরদর্শী

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন আজ। ১৯৪৭ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব দম্পতির সংসার আলোকিত করে জন্ম নেন তাদের প্রথম সন্তান শেখ হাসিনা। আজ, এই জন্মদিনে দলের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে দেশের অসংখ্য মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত তিনি। এ উপলক্ষে বিশেষ বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। প্রতিবেশী ও প্রভাবশালী দুই দেশ ভারত ও চীনের সরকারও তার জন্মদিনে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছে।

০৬:২৫ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

শেখ হাসিনা: একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক

শেখ হাসিনা: একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক

ঝড়-ঝঞ্ঝা,হুমকি-ধমকি কোনোটিই টলাতে পারেনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। বিচক্ষণতার সঙ্গে দেশ ও জনগণের স্বার্থে যেটা যখন প্রয়োজন— করেছেন সাহসের সঙ্গে।  বিডিআর বিদ্রোহের মতো দেশবিরোধী চক্রান্ত, মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার, হেফাজতে ইসলামের অরাজক পরিস্থিতি, সংসদ নির্বাচন প্রতিহতের প্রচেষ্টা ও সরকার উৎখাতে টানা তিন মাসের আন্দোলনকে ব্যর্থ করে দিয়েছেন। বৈশ্বিক মহামারি করোনা মোকাবিলা করে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রেখেছেন তিনি। সরকারকে দাঁড় করিয়েছেন মজবুত ভিত্তির ওপর। দলকে টানা তিনবার ক্ষমতায় আনতে সক্ষম হয়েছেন। রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও কূটনৈতিক দক্ষতা দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের জন্য কুড়িয়েছেন সুনাম। দেশের জন্য বয়ে এনেছেন গৌরব ও সাফল্য। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে গিয়ে জাতিসংঘের মতো শক্তিধর সংস্থা ও যুক্তরাষ্ট্রের মতো শক্তিশালী রাষ্ট্রের চাপ মোকাবিলা করেছেন। ভারতের মতো বৃহৎ প্রতিবেশীর কাছ থেকে দেশের পক্ষে ন্যায্য অধিকার আদায় করেছেন।

০৬:২২ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

পঁচাত্তর পরবর্তী রাজনীতিতে সবচেয়ে সফল কূটনীতিক শেখ হাসিনা

পঁচাত্তর পরবর্তী রাজনীতিতে সবচেয়ে সফল কূটনীতিক শেখ হাসিনা

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে এ দেশের রাজনীতিতে সবচেয়ে সফল কূটনীতিকের (ডিপ্লোমেটিক) নাম শেখ হাসিনা। গত ৪৫ বছরে সফল রাজনীতিবীদের নাম শেখ হাসিনা।’

০৬:২০ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

পিতার মতো শেখ হাসিনা দূরদৃষ্টিসম্পন্ন: রাষ্ট্রপতি

পিতার মতো শেখ হাসিনা দূরদৃষ্টিসম্পন্ন: রাষ্ট্রপতি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ৭৪তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, শেখ হাসিনা পিতার মতোই গণমানুষের নেতা। পিতার মতো শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টি ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হয়েছে। 

০৬:১২ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

অদম্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

অদম্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

টানা তিনবার নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেয়া অদম্য সাহসী নারী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন আজ। গোপালগঞ্জের মধুমতি নদী বিধৌত টুঙ্গিপাড়ায় ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর তিনি জন্মগ্রহণ করেন। স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছার জ্যেষ্ঠ সন্তান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি তিনি। ১৯৮১ সাল থেকে অপ্রতিদ্ব›িদ্ব হিসেবে আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়ে দলের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। টানা তিনবারসহ মোট চারবারের প্রধানমন্ত্রী তিনি। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক অপ্রতিদ্ব›িদ্ব নেতৃত্ব। দেশের মহানগর, জেলা, উপজেলা যার নখদর্পনে, দলের তৃণমূলের নেতাদের নাম মুখস্ত থাকা এক বিরল নেতৃত্ব শেখ হাসিনা। বিশ্বের দরবারে যিনি নিজ যোগ্যতায় সুপরিচিত, বাংলাদেশকে করেছেন আলোকিত। কূটনীতিতে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও চীনের সঙ্গে ভারসাম্য রক্ষা করে এগিয়ে নিচ্ছেন বাংলাদেশকে।

০৬:০৬ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন
৭৪এ দেশরত্ন-

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন

প্রথম হাঁটতে শিখেছেন স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আঙ্গুল ধরে। প্রথমে সেই বাড়িয়ে দেয়া হাত ধরে, পরে জাতির জনকের দেখিয়ে দেয়া পথ ধরে তিনি হাঁটছেন। আজও হাঁটছেন। হাঁটতে হাঁটতে পার করে দিয়েছেন ৭৩ বছর। তিয়াত্তর বছরের সবটুকু ন্যস্ত করেছেন দেশ মাতৃকার জন্য। তিনি আর কেউ নন, তিনি হচ্ছেন দেশের দূরদর্শী, বলিষ্ঠ নেতা, মানুষের আশা-আকাক্সক্ষার বাতিঘর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ তাঁর ৭৪তম জন্মদিন, জয়তু শেখ হাসিনা।

১১:২২ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ রোববার

নিশ্চিত পরাজয় জেনে বিএনপি ভোট বর্জনের পায়তারা করছে

নিশ্চিত পরাজয় জেনে বিএনপি ভোট বর্জনের পায়তারা করছে

‘নিশ্চিত পরাজয় জেনে বিএনপি পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য শেষ মুহুর্তে ভোট বর্জনের পায়তারা করছে।’ আওয়ামী লীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক ও পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচনের সমন্বয়ক এস এম কামাল হোসেন ধানের শীষের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের আলটিমেটাম ও ভোট বর্জনের হুমকির জবাবে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় পাবনা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বলেছেন।

০১:০৫ এএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ রোববার

রাজনৈতিক নয় এখন সময় অর্থনৈতিক কূটনীতির: প্রধানমন্ত্রী

রাজনৈতিক নয় এখন সময় অর্থনৈতিক কূটনীতির: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধু যে পররাষ্ট্রনীতি দিয়ে গেছেন "সকলের সাথে বন্ধুত্ব কারো সাথে বৈরিতা নয়"-এই নীতিতেই চলছে বাংলাদেশ।

১১:৫৪ এএম, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ শনিবার

ভারতকে ৫ বিষয়ে মুচলেকা দিয়েছে তারেক !

ভারতকে ৫ বিষয়ে মুচলেকা দিয়েছে তারেক !

সরকারের সাথে ভারতের টানা পোড়েনের সুযোগ নিতে মরিয়া বিএনপি। ভারতের বিভিন্ন মহলে বিএনপির পক্ষ থেকে যোগাযোগের খবর পাওয়া যাচ্ছে। লন্ডনে তারেক জিয়ার সঙ্গে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বৈঠক নিয়েও বিএনপির মধ্যে আলোচনা চলছে।

১১:৩২ এএম, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ শনিবার

‘আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নয়ন হয়’

‘আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নয়ন হয়’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেছেন, ‘নৌকা স্বাধীনতা, গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির প্রতীক। তাই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় তাকলে দেশের উন্নয়ন হয়। আর ধানের শীষ খুন, জঙ্গিবাদ, ধর্ষণ ও লুটপাটের প্রতীক। তারা ক্ষমতায় থাকলে, হত্যা, রাহাজানি, চুরি, ডাকাতি, জঙ্গিবাদ ও জালাও পোড়াও করে দেশ ছারখার করা হয়।’

১০:৫৫ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

Indemnity Ordinance was a heinous crime

Indemnity Ordinance was a heinous crime

For 21 years, the killers of the founder of Bangladesh had been immune from prosecution due to the Indemnity Ordinance, issued first by Khondaker Mostaq, which was finally repealed in 1996, paving the way for trials of the killers.

১০:৪৮ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

Indemnity Ordinance that protected the killers of Bangabandhu

Indemnity Ordinance that protected the killers of Bangabandhu

It is the responsibility of a state to ensure justice for any murder that takes place in it, but Bangladesh could not hold the trial of the killers of its founding father and much of his family.

১০:৪৩ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের খুনিদের ছাড়পত্র
ইনডেমনিটি অধ্যাদেশঃ

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের খুনিদের ছাড়পত্র

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তারিখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারবর্গকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ক্ষমতা দখল করে নেয় সেনাসমর্থিত খোন্দকার মোশতাক সরকার। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাত্র ৯ দিনের মাথায় অর্থাৎ ২৪ আগস্ট ১৯৭৫ তারিখে সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হন জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান সেনাপ্রধান থাকাকালীন সময়ে ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তারিখে অঘোষিত রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন।

১০:৩৫ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

যেভাবে ‘ইনডেমনিটি’ আইন বাতিল হয়ে শাস্তি পেল খুনিরা

যেভাবে ‘ইনডেমনিটি’ আইন বাতিল হয়ে শাস্তি পেল খুনিরা

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পটপরিবর্তন ঘটে। ক্ষমতায় আসেন খন্দকার মোশতাক আহমদ। আর এসেই ২৬ সেপ্টেম্বর ইনডেমনিটি নামে একটি অধ্যাদেশ জারি করেন।

১০:৩২ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের রক্ষার সেই অধ্যাদেশে কী ছিল !

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের রক্ষার সেই অধ্যাদেশে কী ছিল !

যে কোনো হত্যাকাণ্ডের বিচারের দায়িত্ব রাষ্ট্র নিলেও বাংলাদেশে জাতির পিতার হত্যার বিচারই আটকে দেওয়া হয়েছিল, যা বিশ্ব ইতিহাসেই বিরল।

১০:৩০ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের জন্য দায়ী কে, জিয়া না মোশতাক ?

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের জন্য দায়ী কে, জিয়া না মোশতাক ?

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল। আমার মনে হয়, এ বিষয়ে কারো বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই, থাকার কথাও না।

১০:২৫ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ: জাতির কলঙ্কিত অধ্যায়

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ: জাতির কলঙ্কিত অধ্যায়

১৯৭৫ এর ২৬ সেপ্টেম্বর, বাংলাদেশের ইতিহাসে বিচারহীনতার সংস্কৃতির এক কলঙ্কিত অধ্যায়ের সূত্রপাত ঘটে এ দিনে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তারিখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারবর্গকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ক্ষমতা দখল করে নেয় সেনাসমর্থিত খোন্দকার মোশতাক সরকার। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাত্র ৯ দিনের মাথায় অর্থাৎ ২৪ আগস্ট ১৯৭৫ তারিখে সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হন জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান সেনাপ্রধান থাকাকালে ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তারিখে অঘোষিত রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন। এটি ১৯৭৫ সালের অধ্যাদেশ নং ৫০ নামে অভিহিত ছিল।

১০:২১ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

২৬ সেপ্টেম্বরকে কালো দিবস ঘোষণা করা হোক
ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ:

২৬ সেপ্টেম্বরকে কালো দিবস ঘোষণা করা হোক

ছোটবেলা থেকে যখন আব্বাকে দেখতাম নৌকার মিছিল-মিটিংয়ে যাচ্ছেন, আমরাও নৌকা নৌকা করতাম। তারপর বুঝতে শিখলাম বঙ্গবন্ধু ও প্রাণের সংগঠন আওয়ামী লীগকে। বঙ্গবন্ধুকে জানতে গিয়ে জানা হলো কেমন করে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তারই স্বাধীন করা দেশের স্বাধীন মাটিতে তাকে সপরিবারে হত্যা করা হলো। ১৫ আগস্টের কথা কোথাও আলাপ হলে শুনতাম, মন খারাপ হয়ে যেত। খুব বেশি অপরাধী মনে হতো এই ভেবে— এমন একটি জাতির অংশ আমি নিজেও, যে জাতি তার পিতাকে হত্যা করেছিল।

১০:১৯ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

বঙ্গবন্ধু বিশ্বের মুক্তিকামী সকল মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ

বঙ্গবন্ধু বিশ্বের মুক্তিকামী সকল মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ

‘একজন মানুষ হিসাবে সমগ্র মানবজাতি নিয়েই আমি ভাবি। একজন বাঙালি হিসাবে যা কিছু বাঙালিদের সঙ্গে সম্পর্কিত তাই আমাকে গভীরভাবে ভাবায়। এই নিরন্তর সম্পৃক্তির উৎস ভালোবাসা- অক্ষয় ভালোবাসা- যে ভালোবাসা আমার রাজনীতি এবং অস্তিত্বকে অর্থবহ করে তোলে।’ (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৩০ মে, ১৯৭৩)। বঙ্গবন্ধু শুধুমাত্র বাংলা ও বাঙালিদের নিয়ে ভাবতেন না। তার সারা জীবনের সংগ্রাম ও ত্যাগের মাধ্যমে এটাই আজ প্রমাণিত-তিনি ছিলেন সারা বিশ্বের মুক্তিকামী সকল ধর্ম, বর্ণ ও গোত্রের রাজনৈতিক আদর্শ এবং অনুপ্রেরণার নাম। সারা বিশ্বের যেখানে মানুষ শোষিত ও বঞ্চিত হয়েছে সেখানকার মানুষের হয়ে তাদের একজন হয়ে কথা বলেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

১০:১৩ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

যে জন্য বঙ্গবন্ধু অবিসংবাদিত নেতা

যে জন্য বঙ্গবন্ধু অবিসংবাদিত নেতা

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়, একটি ইতিহাস। আজ হতে শতবর্ষ পূর্বে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় এক সল্ফ্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করে, মাতৃক্রোড়ে যে শিশু প্রথম চোখ মেলেছিল, পরবর্তীকালে সে শিশুর পরিচিতি দেশের গণ্ডিরেখা অতিক্রম করে পরিব্যাপ্ত হয়েছে বিশ্বব্যাপী। মা-বাবার আদরের 'খোকা', রাজনৈতিক সহযোদ্ধাদের সুপ্রিয় 'মুজিব ভাই', সমসাময়িকদের প্রিয় 'শেখ সাহেব' থেকে মুক্তিকামী বাঙালির ভালোবাসায় অভিষিক্ত হয়ে অর্জন করেন 'বঙ্গবন্ধু' উপাধি এবং শেষত কায়েমি স্বার্থবাদীদের প্রধানমন্ত্রিত্বের প্রস্তাব ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করে হয়ে ওঠেন জাতির অবিসংবাদিত নেতা-জাতির পিতা, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। যে জন্য ১৭ মার্চ আমাদের জাতীয় জীবনে এক ঐতিহাসিক দিবস।

১০:০৭ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা