শনিবার   ৩১ অক্টোবর ২০২০   কার্তিক ১৬ ১৪২৭   ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কক্সবাজার বার্তা
সর্বশেষ:
৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা ‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’ রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে অ্যাঞ্জেলিনার চিঠি ডিসেম্বরে নির্মাণ শুরু হবে দেশের প্রথম পাতাল মেট্রো রুট গোলদিঘির পাড়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিকমানের মারকাজ মসজিদ ২০২২ সালের মধ্যে ট্রেন চলবে কক্সবাজারে কক্সবাজারের উন্নয়নে উদ্যোগ নিলো জাতিসংঘ দ্বিতীয় পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প মহেশখালী-কুতুবদিয়ায়! এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজ ১০০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে কক্সবাজারে ২৫ মেগা প্রকল্পে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়নে শীর্ষে কক্সবাজার
১৫০

Indemnity Ordinance was a heinous crime

প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০  

For 21 years, the killers of the founder of Bangladesh had been immune from prosecution due to the Indemnity Ordinance, issued first by Khondaker Mostaq, which was finally repealed in 1996, paving the way for trials of the killers.

 As the parliament was not in session, at the time of issuing, the act was promulgated on September 1975, in the form of ordinance by Khondaker Mostaq Ahmed, who was made president of the country by the junior officers who killed Bangabandhu. It was called 'Indemnity Ordinance 1975'. Everyone knows that he was nothing but a puppet of the killers. However, the ordinance was ratified by the regular parliament as it constituted  till 1979.

It was a heinous crime issuing impunity for the murderers and allows them to flee country. Not only that the killers were saved, but also most of the criminals were rewarded positions to represent Bangladesh abroad. Dalim, one of the main planners of Bangabondhu's killing represented Bangladesh in Beijing, Hong Kong and Tripoli, and became High Commissioner to Kenya. Aziz Pasha served in Rome, Nairobi and Harare. 

কক্সবাজার বার্তা
কক্সবাজার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর